Placeholder canvas
কলকাতা রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪ |
K:T:V Clock

Mamata Banerjee | Balasore | রেল দুর্ঘটনার সঠিক তদন্তের দাবি, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের

Updated : 3 Jun, 2023 6:42 PM
AE: Abhijit Roy
VO: Priti Saha
Edit: Silpika Chatterjee

বালেশ্বর: শনিবার ওড়িশার বালেশ্বরে (Balasore) রেল (Coromandel Express Accident) দুর্ঘটনার সঠিক তদন্তের দাবি তুলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। ঘটনাস্থলে গিয়ে রেলমন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণের (Ashwini Vaishnaw) সঙ্গে কথা বলেন মুখ্যমন্ত্রী। এদিন রেলমন্ত্রী পাশে দাঁড়িয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে মমতা হলেন- কিছু তো হয়েছে, তার জেরেই এই দুর্ঘটনা। এই দুর্ঘটনার সঠিক ভাবে তদন্ত হওয়া উচিত। রেল ও ওড়িশা সরকারের সঙ্গে উদ্ধারকাজে সহযোগিতা করা হবে। দুর্ঘটনাস্থলে দাঁড়িয়ে বললেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি জানিয়েছেন, শুক্রবার ৪০ টি অ্যাম্বুল্যান্স পাঠানো হয়েছে, শনিবার আরও ৭০ টি অ্যাম্বুল্যান্স পাঠানো হয়েছে পশ্চিমবঙ্গ থেকে।কী ভাবে ট্রেন দুর্ঘটনা ঘটল, তা এখনও স্পষ্ট নয়। দুর্ঘটনার কারণ জানতেই উচ্চ পর্যায়ের তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে রেল। 

করমণ্ডল এক্সপ্রেস দুর্ঘটনায় মৃত বাংলার বহু শ্রমিক। এই দুর্ঘটনায় বাংলার যে সব মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন তাঁদের  পরিবারকে ৫ লক্ষ টাকা। গুরুতর আহতদের ১ লাক্ষ টাকা ও কম জখমদের ৫০ হাজার টাকা করে আর্থিক সাহায্য ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। এদিন ঘটনাস্থলে রেলমন্ত্রীর পাশে দাঁড়িয়ে রেলের সমন্বয়ের অভাব বলে অভিযোগ করেন মমতা। রেলমন্ত্রী সঙ্গে দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শনও করেন। এই ঘটনায় মৃতের সংখ্যা ৫০০ ছাড়িয়ে যেতে পারে আশঙ্কা মুখ্যমন্ত্রীর। দুর্ঘটনাস্থল থেকে বালাশ্বরের সোরো হাসপাতালে আহতদের দেখতে যান মুখ্যমন্ত্রী। বলে  বালেশ্বরের এই দুর্ঘটনা শতাব্দীর সবচেয়ে বড়। প্রয়োজনে আহতদের চিকিৎসার বন্দোবস্ত করা হবে বলেও জানান তিনি। 

বালেশ্বরের এই দুর্ঘটনা শতাব্দীর সবচেয়ে বড়। প্রয়োজনে আহতদের চিকিৎসার বন্দোবস্ত করা হবে বলেও জানান তিনি। যদি অ্যান্টি কলিশন ডিভাইস বসানো থাকত এটা হত না।  এতগুলো প্রাণ চলে গেছে। তাঁদের ফেরানো তো যাবে না।’ বালেশ্বরে গিয়ে বললেন মুখ্যমন্ত্রী। কথা বলেছেন রেলমন্ত্রীর সঙ্গে। বালেশ্বর যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিও। এই প্রসঙ্গে মমতা বলেন, সাক্ষাৎ হলে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলব।

বালেশ্বরে মৃত্যু মিছিল। নিশ্চিত রেলযাত্রা এক মূহুর্তে বদলে গিয়েছে ‘শেষ যাত্রা’য় । দুমড়ে মুচড়ে গিয়েছে ট্রেনের কামরা গুলি। উপড়ানো রেলের লাইন, দলা পাকিয়ে যাওয়া ওভার হেডের তার, তুবড়ে যাওয়া বৈদ্যুতিক খুঁটি, একের উপর এক উঠে যাওয়া ট্রেনের কামরা চারিদিকে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে চাপ চাপ রক্ত যাত্রীদের দেহাংশ। জানালা বা দরজা থেকে ঝুলছে যাত্রীদের হাত-পা। শনিবার রেলের তরফে জানানো হয়েছে, ট্রেন দুর্ঘটনায় মৃতের সংখ্যা ২৬১। আহত হয়েছেন প্রায় ৬৫০ জন। মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। প্রত্যক্ষদর্শীদেরও আশঙ্কা, উদ্ধারকাজ যত এগোবে, নিহত এবং আহতের সংখ্যা আরও বাড়বে।