Placeholder canvas
কলকাতা সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪ |
K:T:V Clock

The Diary of West Bengal | ‘দ্য ডায়েরি অফ ওয়েস্ট বেঙ্গলে’র পরিচালককে তলব কলকাতা পুলিশের

Updated : 26 May, 2023 8:11 PM
AE: Hasibul Molla
VO: Priti Saha
Edit: Silpika Chatterjee

নয়াদিল্লি: কাশ্মীর ফাইলস, কেরালা স্টোরির পর এবার বিতর্কের কেন্দ্রবিন্দুতে ‘দ্য ডায়েরি অফ ওয়েস্ট বেঙ্গল’। হিন্দি ছবির ট্রেলারেই সমালোচনার ঝড়। শুধু তাই নয়, এই ছবির জন্য কলকাতা পুলিশ তলব করল পরিচালক সনোজকুমার মিশ্রকে। আগামী ৩০ মে আমহার্স্ট স্ট্রিট থানায় তলব করা হয়েছে পরিচালককে। মুম্বইয়ের বাসিন্দা সনোজকে তলবি চিঠিতে পুলিশ লিখেছে, অভিযোগের ভিত্তিতে আপনাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাকা হচ্ছে। তাঁকে ৩০ মে, দুপুর ১২টায় থানায় হাজিরা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে পুলিশ। যেদিন কেরালা স্টোরি এ রাজ্যে নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হল, সেদিনই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সাংবাদিক সম্মেলনে বেঙ্গল ফাইলস বলে এই ছবির কথা উল্লেখ করেছিলেন।

ছবির কাহিনি ও পরিচালনা দুই-ই সনোজের নিজের। ছবির উপস্থাপনা করেছে ওয়াসিম রিজভি ফিল্মস এবং প্রযোজনা করেছেন জিতেন্দ্রনারায়ণ সিং। সহ প্রযোজক হচ্ছেন তাপস মুখোপাধ্যায় এবং অচিন্ত্য বোস। ছবির মাধ্যমে পরিচালক বাংলার অপমান করেছেন বলে অভিযোগ। রোহিঙ্গা মুসলিম এবং বাংলাদেশি মুসলিমরা কীভাবে এই বাংলায় স্থায়ী আস্তানা গাড়তে পারল, তা তুলে ধরার চেষ্টা করা হয়েছে ছবিতে। ট্রেলারে দেখানো হয়েছে, কীভাবে এই দুই গোষ্ঠীর লোক দ্রুত এরাজ্যে বাসা বিস্তার করল। আর যাতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নেতৃত্বাধীন তৃণমূল সরকার ভোটব্যাঙ্ক রাজনীতির কারণে সমর্থন জোগাল। সাহায্য করল।

ট্রেলারে আরও দেখানো হয়েছে, রোহিঙ্গারা কীভাবে নালিয়াখালি গ্রামে হিন্দুদের শয়ে শয়ে ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দিল। রাজ্যে কীভাবে সিএএ এবং এনআরসি-র বিরুদ্ধে মমতা প্রতিবাদ প্রচার করছেন। ছবির ট্রেলার প্রথম মুক্তি পায় লখনউয়ে এক অনুষ্ঠানে। সেখানে প্রযোজক জিতেন্দ্রনারায়ণ সিং বলেন, দিনের পর দিন পশ্চিমবঙ্গের অবস্থা খারাপ হচ্ছে। বাংলাদেশি জঙ্গি এবং রোহিঙ্গা মুসলিমরা এরাজ্যে বাসা বেঁধেছে।

ছবির আরেকজন প্রযোজক ওয়াসিম রিজভির অভিযোগ, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকার রোহিঙ্গাদের ভোটব্যাঙ্ক হিসেবে ব্যবহার করছেন। রোহিঙ্গাদের আধার কার্ড দেওয়া হচ্ছে, তাদের নাম ভোটার তালিকায় তুলে দেওয়া হচ্ছে। এইসব কার্ড দেখিয়ে রোহিঙ্গারা সহজেই এদেশের নাগরিকের মর্যাদা পেয়ে যাচ্ছে এবং ভারতের যে কোনও রাজ্যে চলে যাচ্ছে। এসব করা হচ্ছে একটি বিশেষ কারণে বলে তিনি ইঙ্গিত করেন। 

উল্লেখ্য, এর আগে কেরালা স্টোরির প্রদর্শন নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে (Supreme Court) ধাক্কা খেয়েছে রাজ্য সরকার (State Government)। ‘দ্য কেরালা স্টোরি'(The Kerala Story) সিনেমা রাজ্যে নিষিদ্ধ করার যে নির্দেশ দিয়েছিল তৃণমূল সরকার, সুপ্রিম কোর্ট তাতে স্থগিতাদেশ জারি করে। ওই সিনেমায় যেসব দৃশ্য দেখানো হয়েছে তাতে রাজ্যের আইন শৃঙ্খলা (Law and Order) পরিস্থিতির অবনতি ঘটতে পারে- এই আশঙ্কায় রাজ্য সরকার ছবি প্রদর্শনে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল। ওই নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে প্রযোজক এবং নির্মাতা সংস্থা সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়। শীর্ষ আদালত ওই নির্দেশের উপর স্থগিতাদেশ দেয়।