Placeholder canvas
কলকাতা সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪ |
K:T:V Clock

Price Hike |Task Force | বাজার করতে গিয়ে পকেট ফাঁকা, সবজির দাম নিয়ন্ত্রণে নামল টাস্ক ফোর্স

Updated : 3 Jul, 2023 8:00 PM
AE: Samrat Saha
VO: Soumi Ghosh
Edit: Silpika Chatterjee

কলকাতা: ঊর্ধ্বমুখী বাজার দরে (Vegetable Price Hike) আমজনতার নাভিশ্বাস উঠছে। মাছ ভাত দূরের কথা সামন্য লঙ্কা কিনতে গিয়ে হাত পুড়ছে সাধারণ মানুষের। বাজার করতে গিয়ে কার্যত পকেটে ফাঁকা হওয়ার জোগার মানুষের। লঙ্কা, আদা তিনশো টাকা কেজি। টম্যাটোর দাম ১৬০ টাকা। প্রায় কোনও সবজির দামই একশো টাকার নীচে নেই। বাজারে শাক-সবজির দাম নিয়ন্ত্রণ করতে সোমবার বাজারে নামল টাস্ক ফোর্স। এই মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে উদ্বিগ্ন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি মুখ্যসচিবকে নির্দেশ দিয়েছিলেন অবিলম্বে বৈঠক করে টাস্ক ফোর্সকে বাজারে নামাতে। সেই মতো এদিন থেকেই বাজার ঘুরে দেখবেন টাস্ক ফোর্স (Task Force)।

যেভাবে লাফিয়ে লাফিয়ে সাগ সবজির দাম বাড়ছে সাধারণ মানুষকে আট পেটা খেয়ে থাকতে হবে আর কিছুদিন পর। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই বিষয়টি ওপর নজর রেখে টাস্ক ফোর্স এর আধিকারিকদের বিভিন্ন বাজার পরিদর্শন করতে বলেন। সেইমতো আজ অর্থাৎ সোমবার থেকে টাস্ক ফোর্স এর সদস্যরা সল্টলেকে বেশ কয়েকটি বাজারে অভিযান চালান। প্রথমে তারা এবিএসি মার্কেটে যান তারপর বিডি মার্কেট এবং সর্বশেষে তারা সিকে মার্কেটে যান পরিদর্শন করতে। দোকানদারদের সাথে কথা বলে জানতে চান শাক-সবজির কি দাম। কয়েকজন দোকানদারদের সঙ্গে কথা বলেন। রীতিমতো বিস্তৃত হয়ে যান টাক্স স্পোর্টসের আধিকারিকরা তারা বলেন, হোলসেল মার্কেটে বেশ কিছু জিনিসের দাম কম থাকলেও পাইকারি দোকানগুলিতে দাম বেশি নিয়ে বিক্রি করা হচ্ছে সবজির। যেহেতু আজ প্রথম দিন তারা এসেছেন সেই জন্য তারা অনুরোধ করেন দোকানদারদের কাছে যাতে লাভ বেশি না রেখে তারা যেন সাধারণ মানুষকে সবজি বিক্রি করেন। 

এর পাশাপাশি রাজ্য সরকারের উদ্যোগে যে সমস্ত সবজির দোকান আছে সেই সমস্ত দোকানগুলিতে দাম বাজারে তুলনায় কিছুটা হলেও কম। সল্টলেকের বাজার গুলিতে কার কিরকম দাম- বেগুন প্রতি কেজি ১০০ টাকা, ঢেড়স ৮০ টাকা, শসা ৮০ টাকা, গাজর ৫০ টাকা পেঁপে ৪০ টাকা টমেটো ৪০০ টাকা ক্যাপসিকাম ১৫০ টাকা পটল ৬০ টাকা নাচালঙ্কা ২০০ টাকা বিনস দেড়শ টাকা লেবু প্রতি পিস চার টাকা উচ্ছে ১০০ টাকা পেঁপে ৪০ টাকা প্রতি পিস ঝিঙে আশি টাকা বাঁধাকপি ৫০ টাকা জ্যোতি আলু ২০ টাকা চন্দ্রমুখি ২৪ টাকা পিয়াজ ৫০ টাকা রসুন ১৮০ টাকা আদা ৩০০ টাকা লাউ চল্লিশ টাকা মোচা চল্লিশ টাকা রাঙালু ষাট টাকা। এমনিতে সল্টলেকে বাজার গুলিতে কিছুটা হলেও দাম বেশি থাকে। সবজির দাম অগ্নি মূল্য হওয়াতে মাথায় হাত পড়েছে ক্রেতাদের। বিক্রেতাদের দাবি যেহেতু এত গরম পড়েছে তাই তেমনভাবে চাষ হয়নি এবং পাইকারি দামের তুলনায় খুব অল্প লাভ রেখে তারা জিনিসপত্র বিক্রি করে দিচ্ছেন।

অগ্নি মুল্যবাজারদরের প্রতিবাদে আজ যদুবাবুর বাজারে প্রতিবাদে দক্ষিণ কলকাতা জেলা কংগ্রেস। কংগ্রেসের দাবি, মোদি-মমতা সরকার সাধারণ মানুষের জন্য বড় বড় কথা বলে চলেছে। অথচ,নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্যবৃদ্ধি, কালোবাজারি, অগ্নিমূল্য বাজারের কারণে মানুষের নাভিশ্বাস ওঠার জোগাড়। এই সময়ে মানুষের কাছ থেকে সমস্ত কিছু লুঠ করতে ব্যস্ত কালো বাজারীরা।